Author Archives: aarizmohammed

Salman F.Rahman

Beximco Pharma is one of the limited few enterprises in Pharmaceutical Industry, which crossed the boundaries of the country to get established in the international arena with their own identity, coverage and reputation. Wise circles at home and abroad labeled Beximco Pharma as one of the top pharmaceutical manufacturing enterprises much earlier. In true sense, for transformation from that position of one of a few, to the country’s best pharmaceutical enterprise of today, the person whose talent, devotion, diligence, sincerity and far-sightedness are intimately blended, is the pioneer personality of the group Mr. Salman F.Rahman also the Deputy Chairman of the group. Today, due to his competent leadership, Beximco Pharma is considered                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                               as a dependable pharmaceutical exporter to USA. After emergence as a successful exporter to U.S.A., another feather was added to their crown of success by way of inclusion of the enterprise as a member of London Stock Exchange. Through this event, not only a Bangladeshi Company entered London Stock Exchange for the first time but also any Company even from amongst the countries of the Muslim world entered London Stock Exchange for the first time. In this regard Mr.Salman F.Rahman says he started to think, when neighboring India could export Medicines worth Rs.1400 Cr. a year then why could not we be able? Such precise far reaching thoughts could bring BEXIMCO to today’s position. Not only his own enterprise but also the entire Pharmaceutical industry of Bangladesh got established in honorable position amongst world’s arena for which Mr.Salman F.Rahman’s role is undeniable. In recent past, his election to the position of the President of the Pharmaceutical Industry Association proves recognition of confidence of others in his leadership. Then not only in the field of trade and commerce but also Salman F.Rahman aroused with patriotism, plays an effective role in politics. With the resolve of serving the country, by not keeping his position direct, he is indirectly involved in politics. He is the Advisor to the President of Awami League on private sector related affairs. Beximco Group with employment of 25000 will expand far more with merit and intellect of Salman F.Rahman. Everybody expects reputation and business success of this enterprise will grow further and further in the interest of the country.

Advertisements

Salman F Rahman, a True Inspiration!

fortune-1

Mr. Salman F Rahman, a top-notch entrepreneur, a successful businessman, a philanthropist and now a proud owner of Bangladesh’s largest corporate venture with an astounding turnover, the man has many accreditations to his credit. A family to more than 48,000 employees, investments in numerous business ventures under his conglomerate company, Salman has left no stone unturned to meet international standards for his giant business venture, Beximco.

Rahman is today heading numerous business enterprises under the parent company, Beximco, namely- Bangladesh Export Import Co. Ltd., Beximco Pharmaceuticals Ltd., Beximco Synthetics Ltd., Beximco Engineering Ltd. et al. He transformed the scenario of business in Bangladesh with some of his most successful ventures in the arenas of textiles, pharmaceuticals, finance and real estate. One of his most successful endeavors includes the Beximco Pharmaceuticals which gained national fame with its precious listing in the Dhaka Stock Exchange. What started as a small-scale company, this pharmaceutical company became one of the country’s biggest achievements and the nation’s pride by grabbing the limelight in the London’s Alternative Investment Exchange.

However, this inspiring personality and now one among the richest business tycoons of Bangladesh, Salman F Rahman faced a period of stress and storm owing to his humble parentage. He and his brother were left to make their own living after the demise of their father in 1966. What was left in the name of his parental property was a small-scale jute mill, which too was later confiscated by the government. Their wait to own their mill back lasted for good ten years, only after the government brought-in a relaxation in its rules. Since then, there was never looking back. With his will, enviable knowledge and a solid experience, he established an experimental company by the name Beximco in 1972. The company later expanded in terms of its revenue and potential to become the country’s largest private business enterprise.

Later, with credible investments into the banking sector of the country Salman F Rahman established the Arab Bangladesh bank in alliance with the Galadari Brothers Group, based in Dubai. He is today leading the International Finance Investment and Commerce Bank as its chairman and holds a stake of more than 30 per cent.

Salman F Rahman has made commendable contributions to uplift the ceramics sector of the country. With hard work and meticulous planning, his company has become the premiere exporter of ceramic products today. Beximco has established itself as an international brand for manufactured ceramic products. His successful ventures have surely won fame and credit to this developing country. Numerous enterprises headed by Beximco Group have made phenomenal contributions in uplifting the economy of the country. Today, he Salman F Rahman is an inspiring icon for the youth of the country.

Salman F Rahman new ATCO president

salman_f_rahman_beximco

Salman F Rahman, chairman of Independent Television, was elected president of ATCO (Association of Television Channel Owners) yesterday. Ekattor TV Managing Director Mozammel Babu and Desh TV Deputy Managing Director Arif Hasan were elected senior vice president and vice president respectively of the private television channel owners’ association in Bangladesh.  The 15-member committee has been elected for a 2-year tenure. After the election, the new committee expressed its optimism to take forward the country’s rapidly expanding media industry. New ATCO President Salman F Rahman said the election of the new committee will add momentum to the activities of ATCO. He also expressed hope that various problems that exist in this industry will be solved through the new committee. The election to ATCO’s new committee was held at a hotel in the capital.

Read Source: http://www.theindependentbd.com/post/95771

ব্যবসায়ীদের দাবি বিবেচনা করে ভ্যাট আইন বাস্তবায়ন হবে

সালমান এফ রহমান

কার্যকর হতে যাওয়া ভ্যাট আইনে ব্যবসায়ীরা যেসব সমস্যার কথা বলেছেন তা সমাধান করেই আইন বাস্তবায়ন করা হবে বলে জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রীর বেসরকারি খাত বিষয়ক উপদেষ্টা সালমান এফ রহমান।

সোমবার রাত ১০ টায় রাজধানীর হোটেল সোনারগাঁওয়ে এফবিসিসিআইর আগামী মেয়াদে নির্বাচনে পরিচালক প্রার্থী প্যানেল ‘সম্মিলিত গণতান্ত্রিক পরিষদের’ সব প্রার্থীকে ভোটারদের কাছে পরিচয় করে দেয়ার জন্য আয়োজিত অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে সালমান এফ রহমান এসব কথা বলেন।

উপস্থিত ব্যবসায়ী নেতাদের উদ্দেশে তিনি বলেন, আমি আপনাদের আশ্বস্ত করতে চাই যে, প্রধানমন্ত্রী ও অর্থমন্ত্রীর সঙ্গে ভ্যাট নিয়ে বিভিন্ন আলোচনা হয়েছে। তাদের কাছ থেকে ইতিবাচক সাড়া পাওয়া গেছে। আইনে ব্যবসায়ীদের আপত্তি অনুসারে যেসব সমস্যা আছে বলে অভিযোগ উঠেছে সেগুলো বিবেচনা করেই আইন বাস্তবায়ন করা হবে। এ বিষয়ে আপনাদের চিন্তা করতে হবে না।

এর আগে এফবিসিসিআই’র আগামী মেয়াদে সভাপতি প্রার্থী শফিউল ইসলাম মহিউদ্দিন বলেন, এফবিসিসিআই’র মাধ্যমে ভ্যাট আইনে বেশ কয়কটি সমস্যার কথা উল্লেখ করে এনবিআরের কাছে তা সংশোধনের প্রস্তাব দেয়া হয়েছে।

কিন্তু ব্যবসায়ীদের প্রস্তাব মানা হয়নি বলে অভিযোগ করেন তিনি। ভ্যাট নিয়ে যত বড় আইন হোক, তা ব্যবসায়ীদের বিপক্ষে গেলে ঐক্যবদ্ধভাবে প্রতিহত করা হবে বলেও তিনি মন্তব্য করেন।

বিজিএমইএ’র সাবেক সভাপতি আতিকুল ইসলাম বলেন, আকাশে যত তারা এনবিআরের তত ধারা। আমরা এনবিআরকে বলবো, আসেন একসঙ্গে মিলে মিশে থাকি। ব্যবসাকে এগিয়ে নিয়ে যাই। অযথা ব্যবসায়ীদের আকাশের তারা বানাবেন না।

বর্তমানে ব্যবসার পরিস্থিতি ভাল নয় উল্লেখ করে বিজিএমইএর বর্তমান সভাপতি সিদ্দিকুর রহমান বলেন, এফবিসিসিআইর জন্য একজন যোগ্য নেতা দরকার। কারন বর্তমানে দেশে ব্যবসার অবস্থা ভাল নয়। বিশেষ করে তৈরি পোশাক খাতে খুব দূরাবস্থা চলছে। যেখানে গত ১০ বছর ধরে এ খাতে প্রবৃদ্ধি ছিল ১৩ শতাংশ বর্তমানে তা ২ দশমিক ২১ শতাংশে নেমে এসেছে। একে প্রবৃদ্ধি বলা যায় না।

অনুষ্ঠানে এফবিসিসিআই’র আগামি মেয়াদে সভাপতি প্রার্থী শফিউল ইসলাম মহিউদ্দিন তার প্যানেলে অ্যাসোসিয়েশন থেকে ১৮ জন পরিচালক প্রার্থীকে পরিচয় করিয়ে দিয়ে তাদের জন্য ভোট চেয়েছেন।

অনুষ্ঠানে ত্রানমন্ত্রী মোফাজ্জল হোসেন চৌধুরী মায়া, ঢাকা উত্তরের মেয়র আনিসুল হক, এফবিসিসিআইর সাবেক সব সভাপতি, প্রথম সভাপতি, সহ-সভাপতিসহ অন্যান্য পরিচালক ও ভোটাররা উপস্থিত ছিলেন।

Read Source : http://www.channelionline.com/%E0%A6%AC%E0%A7%8D%E0%A6%AF%E0%A6%AC%E0%A6%B8%E0%A6%BE%E0%A7%9F%E0%A7%80%E0%A6%A6%E0%A7%87%E0%A6%B0-%E0%A6%A6%E0%A6%BE%E0%A6%AC%E0%A6%BF-%E0%A6%AC%E0%A6%BF%E0%A6%AC%E0%A7%87%E0%A6%9A%E0%A6%A8/

সার্কভুক্ত দেশগুলোতে অবিশ্বাস্য প্রবৃদ্ধির সম্ভাবনা রয়েছে : সালমান এফ রহমান

1492363473_20.jpg
অর্থনৈতিক রিপোর্টার : আওয়ামী লীগ সভানেত্রীর বেসরকারি খাতবিষয়ক উপদেষ্টা সালমান এফ রহমান বলেছেন, সার্কের দেশগুলোর মধ্যে সীমানা মানুষের তৈরি। সার্কভুক্ত দেশগুলো এক জোট হলে, নিজেদের মধ্যে সহযোগিতা বৃদ্ধি করলে অবিশ্বাস্য প্রবৃদ্ধির সম্ভাবনা তৈরি হবে।
গতকাল রোববার রাজধানীর সোনারগাঁও হোটেলে দক্ষিণ এশিয়ার অর্থনৈতিক সম্ভাবনা নিয়ে সার্ক চেম্বার আয়োজিত এক আলোচনা সভায় তিনি এসব কথা বলেন। এতে সার্কভুক্ত দেশগুলোর ব্যবসায়ী, গবেষক ও সরকারি কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।
সার্ক চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রির (সার্ক সিসিআই) সভাপতি সুরাজ বৈদ্য বলেন, দক্ষিণ এশিয়ার ৯৫ শতাংশ মানুষ আঞ্চলিক সহযোগিতা সংস্থা সার্কে বিশ্বাস করে। দক্ষিণ এশিয়ার দেশগুলোর ৯৯ দশমিক ৯৯ শতাংশ মানুষ ভালো। শূন্য দশমিক ১ শতাংশ সন্ত্রাসবাদী। এদের কারণে ভালো মানুষেরা ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে।
সুরাজ বৈদ্য বলেন, সার্ক দেশগুলোর ভালো মানুষেরা এ অঞ্চলে অবাধে চলাচল করতে পারে না। এটা কি সার্কের আশাবাদের প্রতি ন্যায্য আচরণ? সন্ত্রাসীরা কিন্তু ঠিকই ঘুরে বেড়ায়। তাদের ভিসার প্রয়োজন হয় না।
সভায় আলোচনায় সার্কভুক্ত দেশগুলোর মধ্যে বাণিজ্যের ক্ষেত্রে বিভিন্ন সমস্যা নিয়ে আলোচনা হয়। বক্তারা বলেন, অন্য অঞ্চল যেখানে নিজেদের মধ্যে বড় অংশের বাণিজ্য করে, সেখানে সার্কের দেশগুলো মোট বাণিজ্যের মাত্র ৫ শতাংশ নিজেদের মধ্যে করে।
অনুষ্ঠানে এফবিসিসিআইয়ের সহসভাপতি মাহবুবুল আলম, সাবেক তত্ত¡াবধায়ক সরকারের উপদেষ্টা ম তামিম, পাকিস্থানের বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের যুগ্ম সচিব তৈমুর তাজমহল, ঢাকায় পাকিস্থান দূতাবাসের কমার্শিয়াল কাউন্সিলর সুলেমান খান, নেপালের গবেষক থ্রিশিজ দাহাল, শ্রীলঙ্কার গবেষক কিথমিনা হেওয়াজ বক্তব্য দেন।

পর্দা উঠলো এশিয়া এলপিজি সামিটের

opening20170226132447_orig.jpg

ইন্টারন্যাশনাল কনভেনশন সিটি বসুন্ধরায় (আইসিসিবি) বর্ণাঢ্য আয়োজনের মধ্য দিয়ে শুরু হলো চতুর্থ এশিয়া এলপিজি সামিট-২০১৭। বাংলাদেশে প্রথমবারের মতো আয়োজিত এ সামিটের উদ্বোধন করেন বিদ্যুৎ জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ।
রোববার (২৬ ফেব্রুয়ারি) উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে অন্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন, জ্বালানি বিভাগের সচিব নাজিমউদ্দিন চৌধুরী, এলপিজি ইন্ডাস্ট্রিজ অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ’র সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রীর প্রাইভেট খাত বিষয়ক উপদেষ্টা সালমান এফ রহমান, বসুন্ধরা গ্রুপের ভাইস চেয়ারম্যান সাফিয়াত সোবহান, ইস্ট কোস্ট গ্রুপের চেয়ারম্যান আজম জে চৌধুরী।
বসুন্ধরার মতো জায়ান্ট প্রতিষ্ঠানসহ দেশি ও বিদেশি ৬৩টি প্রতিষ্ঠান অংশ নিয়েছে এই সামিটে, যারা এলপি গ্যাস বাজারজাত, সিলিন্ডার ও অন্যান্য খুচরা যন্ত্রাংশের উৎপাদক হিসেবে কাজ করছে। প্রতি দিন সকাল ৯টা থেকে সন্ধ্যা ৬টা পর্যন্ত সামিট উন্মুক্ত থাকবে।
উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে বিদ্যুৎ প্রতিমন্ত্রী বলেন, এক সময় বলা হয়েছে বাংলাদেশ গ্যাসের উপরে ভাসছে। এইটা ছিল গ্যাস রপ্তানি করার জন্য বিএনপি-জামায়াত জোটের স্টান্ডবাজি। কোনো সমীক্ষা ছাড়াই এমন কথা বলা হয়েছিল। প্রাকৃতিক গ্যাস মূল্যবান সম্পদ। আমরা এর সঠিক ব্যবহার নিশ্চিত করতে চাই। এ জন্য শুধু শিল্পে এর ব্যবহার থাকবে। অন্যান্য খাতে সরবরাহ বন্ধ করে দেওয়ার কথা ভাবছে সরকার। এ জন্য আমরা এলপিজির ওপর গুরুত্ব দিচ্ছি।
প্রতিমন্ত্রী বলেন, আমি তিন বছর সময় চেয়েছিলাম সারাদেশে এলপিজি পৌঁছে দেওয়ার জন্য। এর মধ্যে এক বছর গেছে। আশা করছি, আগামী দুই বছরের মধ্যে দেশের সত্তরভাগ লোকজন এলপি গ্যাসের আওতায় চলে আসবে।

নসরুল হামিদ বলেন, এলপি গ্যাস এলএনজির চেয়ে সাশ্রয়ী। আমরা গৃহস্থালির পাশাপাশি বিদ্যুৎ ‍উৎপাদন ও শিল্পে এলপিজি ব্যবহারের পরিকল্পনা নিয়েছি।

সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে প্রতিমন্ত্রী বলেন, আমাদের দেশে গভীর সমুদ্র বন্দর নেই। লাইটারেজে এলপিজি আনতে হয়। এতে করে পরিবহন খরচ অনেক বেড়ে যায়। গভীর সমুদ্র বন্দর নির্মাণ শেষ হলে ৩০ শতাংশ দাম কমে আসবে।
আগামী দুই বছরের মধ্যে গভীর সমুদ্র বন্দর নির্মাণ শেষ হবে বলেও আশাবাদ ব্যক্ত করেন প্রতিমন্ত্রী।

কোম্পানি ভেদে দামের কমবেশি প্রসঙ্গে প্রতিমন্ত্রী বলেন, আমরা একটি নীতিমালা প্রণয়নের উদ্যোগ নিয়েছি। আগামী দু’ মাসের মধ্যেই এই নীতিমালা চলে আসবে। তখন এই তারতম্য থাকবে না।
সরকার এলপিজিকে নিরাপদ, সহজলভ্য ও সাশ্রয়ী মূলে জনগণের হাতে পৌঁছে দিতে চায় বলে মন্তব্য করেন নসরুল হামিদ।

তিন দিনব্যাপী এই এলপিজি সামিটের আয়োজন করেছে আন্তর্জাতিক এলপিজি অ্যাসোসিয়েশন, অল ইভেন্ট গ্রুপ-সিঙ্গাপুর ও বাংলাদেশের গ্লোবাল ম্যানেজমেন্ট সার্ভিসেস লিমিটেড। এর আগে তিনটি আসর বিভিন্ন দেশের মাটিতে হলেও এবারই প্রথম বাংলাদেশে এই সামিট আনুষ্ঠিত হচ্ছে।
Read Source:http://www.banglanews24.com/economics-business/news/bd/556807.details

Bangladesh respected the main holder transport from India at Pangaon Terminal

salman f rahmanBangladesh invited ‘MV Nou Kollan-1’, the primary holder send from India at Pangaon Inland Container Terminal in Keraniganj. In 2015, a Coastal Shipping Agreement was marked between the two nations, allowing direct transportation of freight vessel over the outskirts. India has named this collusion as an ‘appreciated improvement’.

This progression will incredibly upgrade the network amongst India and Bangladesh as the driving time will get lessened from 30-40 days to 4-10 days.

Dignitaries like Secretary, Ministry of Shipping, Bangladesh-Ashoke Madhab Roy, Shipping Minister Shajahan Khan, Commerce Minister Tofail Ahmed, State Minister for Power, Energy and Mineral Resources Nasrul Hamid and Vice Chairman of Beximco Group Salman F Rahman graced the occasion of emptying 65 holders conveyed by the ship.

Talking on the occasion, Shipping Minister Shajahan Khan stated, “The holder development operation from India to Bangladesh will be proceeded to significantly save money on both time and cost.”

He additionally included, “Purchasers from India and abroad will be profited taking after the operation of the Pangaon Container Terminal. We will set up corners of a few banks in conjunction with Sonali Bank for giving keeping money offices to business elements.”

Respecting the entry of the compartment send worked by Riverline Logistics and Transport Ltd. Indian High Commissioner to Dhaka Harsh Vardhan Shringla stated, “Without precedent for history, Bangladesh has respected a load deliver from India; it is in fact a notorious date.”

“With this assention, now load boats can without much of a stretch drive amongst Dhaka and Kolkata in only 3-4 days. This will turn out to be a financially savvy and faster method of transportation of products. Additionally, it will enormously decongest the streets and land custom stations through which dominant part of the two-sided exchange happens as of now,” said Salman F Rahman.